কুষ্টিয়ার কুমারখালীর কয়া মহাবিদ্যালয়ে বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় কুমারখালী থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হয়েছে।

অজ্ঞাতদের আসামি করে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাটি করেন কলেজের অধ্যক্ষ হারুন উর রশিদ।

এদিকে মামলা হলেও পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। আর আটক ৪ জনের মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কলেজ অধ্যক্ষ ও সভাপতিকে শুক্রবার রাতে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। আর যুবলীগ নেতা আনিসুর রহমান ও নৈশ প্রহরী খলিলুর রহমান পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে দুটি মোটরসাইকেল যোগে তিনজন ব্যক্তি এসে বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভেঙে দিয়ে যায় বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। তাদের ধরতে অভিযান পরিচালনা করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে